চাঁদপুর রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের বার্ষিক সাধারণ সভা ও যুব স্বেচ্ছাসেবকদের কার্যক্রম

চাঁদপুর রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের বার্ষিক সাধারণ সভা ও যুব স্বেচ্ছাসেবকদের কার্যক্রম

চাঁদপুর রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের বার্ষিক সাধারণ সভা ও যুব স্বেচ্ছাসেবকদের কার্যক্রম

বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে আরো একটি সেবা বর্ষ অতিক্রম করলো বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, চাঁদপুর ইউনিট। ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, রবিবার সকাল ১১:০০ ঘটিকার সময়, চাঁদপুর রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট কার্যালয়ে, যুব রেড ক্রিসেন্ট চাঁদপুর ইউনিটের ৪৯তম বার্ষিক সাধারণ সভা-২০২১ অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

সভায় বছর ব্যাপি সেবা কার্যক্রম সমূহ তুলে ধরা হয়। ইউনিট ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্জ্ব ওচমান গনি পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে(অসুস্থতা জনিত কারণে অনুপস্থিত ছিলেন) এবং ইউনিটের সেক্রেটারী এম.এ মাসুদ ভূইয়া পরিচালনায় সভায় বার্ষিক কার্যক্রমের প্রতিবেদন উপস্থাপন ও অনুমোদন করা হয়। এছাড়া আয়-ব্যয় ও আগামী বছরের বাজেট উপস্থাপন করা হয়। বার্ষিক সভায় ইউনিটের সম্মানিত কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যগন, আজীবন সদস্যগন, সাধারণ সদস্য এবং সুধীজন সহ যুব রেড ক্রিসেন্টের স্বেচ্ছাসেবকগন উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সেক্রেটারী মহোদয় ও ইউনিট লেভেল অফিসার জনাব মোঃ বজলুল করিম চৌধুরী করোনা মহামারী চলাকালীন সময়ে চাঁদপুর ইউনিটের যুব স্বেচ্ছাসেবকদের কার্যক্রম সম্পর্কে সবাইকে অবগত করার সময় বলেন, করোনা মহামারীর প্রথম থেকেই যুব স্বেচ্ছাসেবকরা জেলা পরিষদ, জাতীয় সদর দপ্তর ও কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যদের সাথে সমন্নয় করে পুরো পৌর এলাকাতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী, লিফলেট, মাস্ক, হাত ধোয়ার সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সংক্রামন ঠেকাতে বোতলজাত বিশুদ্ধ খাবার পানি ও জনসমাগম হয় এমন স্থান যেমনঃ বাজার, হাসপাতাল, মসজিদ, বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি দপ্তরসহ জেলা কারাগারে বন্দিদের সুরক্ষাতে  জীবানু-নাশক স্প্রে কার্যক্রম করা হয়। শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে হাত ধোয়ার জন্য বেসিন স্থাপন, কয়েক দফায় অসহায় মানুষদের মাঝে জরুরী খাদ্য সহযোগিতা ও ত্রান সামগ্রী প্রদান করা হয়। তাছাড়া করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ চলাকালীন সময়ে প্রত্যেক উপজেলাতে সচেতনতা মূলক মাইকিং, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, পুলিশ সুপারের কার্যালয়, সিভিল সার্জনের কার্যালয়, বিভিন্ন স্কুল কলেজ সহ সরকারি-বেসরকারি দপ্তরে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী, মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়।

করোনা সংক্রামনে চাঁদপুরকে যখন রেড জোন ঘোষণা করা হয় তখন দ্রুত সময়ে জরুরী কল সেন্টারের মাধ্যমে ২৪ ঘন্টা করোনায় আক্রান্ত রোগীদের বাড়িতে গিয়ে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদান করা হয় এবং জেলা সদর হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের জন্য অক্সিজেন কনসেনট্রেটর মেশিন প্রদান করা হয়।

এছাড়াও করোনা ভাইরাসের টিকা কার্যক্রম শুরু হওয়ার প্রথমদিন থেকেই জেলা সদর হাসপাতালে ও পরবর্তীতে আল-আমীন স্কুল এন্ড কলেজে চাঁদপুর রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের যুব স্বেচ্ছাসেবকরা নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

ইউনিট যুব প্রধান রাকিবুল হাসান শাওন জানান, করোনা কার্যক্রম ছাড়াও যুব স্বেচ্ছাসেবকদের এ বছরের নিয়মিত কার্যক্রম যেমনঃ যেকোনো দূর্যোগে দ্রুত সাড়া প্রদান ও ত্রান কার্যক্রম, স্বেচ্ছায় রক্তদান, স্বেচ্ছাসেবকদের বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষন, জাতীয় দিবসসহ অন্যান্য দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন, শীতার্থদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরন, স্বেচ্ছাসেবকদের পক্ষ থেকে রমজানে ইফতারের আয়োজন করা হয়। 

পরবর্তীতে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পর্যাপ্ত সদস্যগন উপস্থিত না থাকার কারনে সভায় রেড ক্রিসেন্ট আইন অনুযায়ী, পরের দিন সকাল ১১.০০ঘটিকা পর্যন্ত সভা মূলতবি ঘোষনা করা হয়। আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবক দিবস উপলক্ষ্যে পরের দিন জাতীয় সদর দপ্তর থেকে ইউনিটের ১০জন শ্রেষ্ঠ স্বেচ্ছাসেবককে  এবং ইউনিটের সম্মানিত কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যগনদের পক্ষ থেকে ইউনিটের ২৬জন স্বেচ্ছাসেবককে সম্মাননা পুরষ্কার প্রদান করা হবে।

চাঁদপুর টুডে/ফয়সাল শেখ/এফএস
পাঠকের মন্তব্য