ইসলামে মানবসেবা ও মানবাধিকার : এস, এ, এম, মিজানুর রহমান খান

ইসলামে মানবসেবা ও মানবাধিকার : এস, এ, এম, মিজানুর রহমান খান

ইসলামে মানবসেবা ও মানবাধিকার : এস, এ, এম, মিজানুর রহমান খান

মানুষ সম্পর্কে দার্শনিকদের নানা মত, কেউ বলেছেন মানুষ হল পেট সর্বস্ব প্রাণী, কেউ বলেছেন সেক্স সর্বস্ব প্রাণী, সমাজ বিজ্ঞানের দৃষ্টিতে সংস্কৃতির সাথে সম্পৃক্ত সংঘবদ্ধ সামাজিক প্রাণী, রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে মানুষ হল ক্ষমতার উৎস, ক্ষমতার নিয়ন্ত্রক। অর্থনীতিবিদদের মতে মানুষ হল উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কেন্দ্রবিন্দু বাজার গতির ১টি অংশ যা অর্থনৈতিক লক্ষ্যকে পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ করে। প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণ থেকে মানুষ হল শাসন তান্ত্রিক কতৃত্বের উৎস, যাদের নিকট সরকার জবাবদিহি করতে বাধ্য। ব্যবস্থাপনা শাস্ত্রের দৃষ্টিকোণ থেকে বিচার করলে দেখা যায় মানুষ হল সংঘবদ্ধ প্রাণী যারা নিয়মনীতির বাধনে আবদ্ধ। দার্শনিক দৃষ্টিকোণ থেকে মানুষ হল উচ্চতর পর্যায়ের বিবেক সম্পন্ন প্রাণী। ইসলামের দৃষ্টিতে মানুষ হল উন্নত নৈতিকতা সম্পন্ন সামাজিক প্রাণী।

আল্লাহ্ মানুষকে সম্মানিত প্রাণীরূপে সৃষ্টি করেছেন।

[ সূরা আল-ইসরা, আয়াতঃ ৭০ ]

মানুষ সামাজিক জীব হওয়ার কারণে একাকী বসবাস করতে পারেনা। জীবন ধারণের প্রয়োজনে জীবনের সকল ক্ষেত্রে মানুষ অন্যের উপর নির্ভরশীল। কোন মানুষই স্বয়ংসম্পূর্ণ নয়। অন্যের উপর নির্ভর করতে হয়। যেহেতু মানুষ একে অন্যের সহযোগিতা ছাড়া বেঁচে থাকতে পারেনা তাই আদিকাল থেকে মানুষ সংঘবদ্ধ ভাবে বসবাস করে আসছে। বলা যেতে পারে ব্যাক্তির প্রয়োজনে বা জীবন ধারণের তাগিদে মানুষ সমাজ বদ্ধ ভাবে বাস করতে শিখেছে। দার্শনিকগণ মানুষকে যেভাবেই বিশ্লেষণ করুকনা কেন মানুষের মূল পরিচয় হল মানুষ সংঘবদ্ধ সামাজিক প্রাণী। আর ইসলামই মানুষকে সংঘবদ্ধ জীবনযাপন করতে শিখিয়েছে। এই পৃথিবীতে মানুষের বসবাসের জন্য কল্যাণকর পরিবেশ সৃষ্টির জন্য ইসলাম প্রতিটি ব্যক্তিকে উৎসাহিত ও অনুপ্রাণিত করেছে।

সাম্য, মৈত্রী, ত্যাগ, ভ্রাতৃত্ব এবং সহমর্মিতার ধর্ম ইসলাম। ইসলাম মানুষকে মানবতা শিখিয়েছে। বিপদে-আপদে একে অপরের পাশে দাঁড়ানোর শিক্ষা প্রদান করেছে ইসলাম। ইসলাম ঘোষণা দিয়েছে, মানুষ মানুষের জন্য। ইসলাম ধর্মে যে পরিমাণ মানবসেবা এবং পরোপকারের দৃষ্টান্ত রয়েছে পৃথিবীর অন্য কোনো ধর্মে তা নেই। এই মানবসেবা এবং উদারতার নীতিকে অবলম্বন করেই বিদ্যুৎ গতিতে পৃথিবীর আনাচে-কানাচে বিস্তার লাভ করেছে ইসলাম। হজরত মুহাম্মদ (সা.) সারাজীবন মানুষের উপকার, মানবসেবা ও মানবকল্যাণকর কাজ করেছেন। অর্থ বিলিয়েছেন প্রশস্ত হস্তে, নিরন্নকে অন্ন দান করেছেন, রোগীর সেবা করেছেন, দাসদের মুক্তি দান করেছেন- সর্বোপরি যেখানেই কোনো মানুষ বিপদগ্রস্ত হয়েছে; যেখানেই ক্ষুণ্ণ হয়েছে মানবতা ; ক্ষুণ্ণ হয়েছে মানুষের অধিকার- সেখানেই উপস্থিত হয়েছেন নবীজি (সা.) এবং সুষ্ঠু সমাধান ও ন্যায্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করেছেন। মানবসেবার এমন কোনো ক্ষেত্র নেই যেখানে মহানবী (সা.) এর ছোঁয়া লাগেনি।

পর্বঃ ০১ -এস, এ, এম, মিজানুর রহমান খান প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি- চাঁদপুর সমাজ উন্নয়ন সংস্থা

 

পাঠকের মন্তব্য