এমএলএম প্রতারণা ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে শাহরাস্তি পৌর আ'লীগের মিন্টু সহ ৭ জন র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার

এমএলএম প্রতারণা  ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে শাহরাস্তি পৌর আ'লীগের মিন্টু সহ ৭ জন র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার

এমএলএম প্রতারণা ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে শাহরাস্তি পৌর আ'লীগের মিন্টু সহ ৭ জন র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার

রাজধানীর মতিঝিলে অভিযান চালিয়ে এ’ওয়ান বাজার লিমিটেড নামে সম্পূর্ণ অনুমোদনবিহীন এবং ভুয়া মাল্টি-লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সন্ধান পেয়েছে র‌্যাব। এসময় প্রতিষ্ঠানটির সাতজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে মতিঝিলের ১ নম্বর আর কে মিশনের ইত্তেফাক ভবনের ৫ম তলায় শুরু হয় এই অভিযান। অভিযানের নেতৃত্ব দেন র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু।

গ্রেফতাররা হচ্ছেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. নুরুল ইসলাম (৪২), পরিচালক (অর্থ) মো. ফেরদৌস খান (৪৮), চাঁদপুর শাহরাস্তি পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক আহবায়ক পরিচালক (প্রশাসন) মো. রেজাউল করিম মিন্টু (৫৬), পরিচালক (মানবসম্পদ) মো. আবুল কালাম আজাদ (৪০), পরিচালক আসাদুল্যাহ দেওয়ান (৪৬), পরিচালক মো. আব্দুস ছাত্তার (৩৭) এবং মো. জাহাঙ্গীর আলম (৫০)। গ্রেফতারকৃত আসামী ৭ জন চাঁদপুর শাহারাস্তী পৌর আওয়ামিলীগ এর রাজনীতি সাথে জড়িত।      

র‌্যাব জানায়, অভিযানে র‌্যাব দেখতে পায় ওই ভবনে অফিস নিয়ে এ’ওয়ান হেলথ কেয়ার এবং এ’ওয়ান বাজার লিমিটেড নামে সম্পূর্ণ অনুমোদনবিহীন এবং ভুয়া মাল্টি-লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) কোম্পানির ডাইরেক্টর নিয়োগের চিত্র। এছাড়া ভুয়া কোম্পানির নামে তারা জেলা-উপজেলায় ডিলার ও সেলসম্যান নিয়োগের নামে প্রায় ৪০ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে ৫০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেন।

র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু জানান, গ্রেফতাররা দীর্ঘদিন ধরে এ’ওয়ান হেলথ কেয়ার এবং এ’ওয়ান বাজার লিমিটেড নামীয় প্রতিষ্ঠান ডেসটিনির মতো গ্রাহক সংগ্রহ করে মাল্টি-লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসা করে আসছে। কিন্তু তাদের এরকম ব্যবসার সরকার কর্তৃক কোনো অনুমোদন নেই। এমনকি তারা যে নামে প্রতিষ্ঠান খুলেছে আদৌ তার কোনো অস্তিত্বও নেই, যা সম্পূর্ণ ভুয়া একটি প্রতিষ্ঠান। কোম্পানিটির ডাইরেক্টর নিয়োগ দেয়ার নাম করে এবং লবঙ্গ টি নামক বিএসটিআই অনুমোদনবিহীন নিম্নমানের একটি পণ্য বাজারজাতকরণের নিমিত্তে এরা জেলা, উপজেলায় ডিলার ও সেলসম্যান নিয়োগের নামে প্রায় ৪০ হাজার গ্রাহকের কাছ থেকে অর্ধশত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এভাবে তারা সাধারণ জনগণের সাথে প্রতারণা করে আসছে।

আসামিদের বিরুদ্ধে নিয়মিত আইনে মামলা করবে র‌্যাব।

পাঠকের মন্তব্য